শনিবার, ২৩ এপ্রিল, ২০১৬

Photo Blog : Nyangabgwe Hill

Photo Blog : Nyangabgwe Hill
Francis Town : Botswana

জিম্ববাবুয়ের রাজধানী হারারে আর বুলাওয়ে শহর দুইটি আমাদের বাংলাদেশীদের কাছে পরিচিত নাম। বাংলাদেশ ক্রিকেট দল জিম্বাবুয়েতে এলে এই দুইটি শহরে ক্রিকেট ম্যাচ খেলে। বতসোয়ানা থেকে এই দুইটি শহরের সাথে রেল যোগাযোগ আছে। বতসোয়ানা থেকে জিম্বাবুয়েতে ঢোকার জন্য ফ্রান্সিস টাউন হয়ে যেতে হয়। ফ্রান্সিসটাউন, বোতসোয়ানার দ্বিতীয় বৃহত্তম এবং দেশের উত্তর পূর্ব কোণের সবচেয়ে বড় বানিজ্যিক কেন্দ্র এবং যোগাযোগ শহর।
Panoramio
১৮৯৭ সালে, টাটি নদীর তীরে এই শহরের গোড়াপত্তন হয়। তবে টাটি নদী ছাড়াও এই শহরে আরেকটি চোখে ল্যান্ডমার্ক হচ্ছে - ন্যাঙ্গাবগুয়ে পাহাড়(Nyangabgwe Hill)! প্রথম প্রথম এইরকম নাম শুনে আমি নিজেও একটু থতমত খেয়েছিলাম। বতসোয়ানার আঞ্চলিক ভাষা সেতসোয়ানাতে নাম এতো জটিল হয় না, এই পাহাড়ের এমন নাম উচ্চারণ করতে আমাকে প্রথম প্রথম বেশ বেশ বেগ পেতে হয়েছে। তবে আমি যে বাংলাদেশী পরিবারের সাথে ফ্রান্সিস টাউনে ছিলাম, সে পরিবারের তিন স্কুল পড়ুয়া বাচ্চারা খুব সহজেই পাহাড়ের এই নামটা বলতো। নামটা আমি এখনো আত্মস্ত করতে পারিনি। 

Nyangabgwe Hill সকালে বেশ চমৎকার দেখায়। সমুদ্র পৃষ্ঠ হতে প্রায় ১০৮৩ মিটার উচ্চতায় এর অবস্থান। এই পাহাড়ে উঠার জন্য দুই পাশ থেকে দুইটি পথ আছে। এটাই শহরের একমাত্র উম্মুক্ত পাহাড়, বাকি টিলা গুলি বিভিন্ন আবাসিক এলাকায় ছেয়ে গেছে।  শহরের সবচেয়ে উঁচু স্থান হয়ায়, মোবাইল ফোন কোম্পানি আর সরকারি রেডিও স্টেশনের টাওয়ার এই পাহাড়ের চুড়া দখল করে নিয়েছে। পাহাড়ের দক্ষিণ পাদদেশে সরকারি কর্তাদের জন্য আবাসিক এলাকা করা হয়েছে। বিভিন্ন টাওয়ার আর দক্ষিণের বাড়িঘর পাহাড়ের প্রাকৃতিক ইমেজ হালকা করেছে, তারপরও সকালে বা বিকালে এই পাহাড়ে দল বেঁধে হাঁটার লোকজন কখনো কম হয় না। 

জিম্বাবুয়ে যাওয়ার মেইন রোডের পাশে, শহরের প্রায় মাঝে এই পাহাড়ের অবস্থান। শহরের উত্তর ও দক্ষিণ-প্রায় সব কোণ থেকে এই পাহাড় আমার নজরে পরেছে। তাই আমার কাছে Nyangabgwe Hill এই শহরের আইকন হিসেবে মনে হয়েছে। 
Geotag:  21° 9'7.88"S  27°30'39.96"E | Sight By Walk
একটি মন্তব্য পোস্ট করুন