বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর, ২০১৩

Jagannath Temple, Comilla

চলতি পথে দেখাঃ কুমিল্লার জগন্নাথ মন্দির

বেশ অনেক দিন থেকে কুমিল্লাতে থাকা হচ্ছে। সাপ্তাহিক ছুটিরদিন গুলিতে কুমিল্লাতে থাকা হয়না, ঢাকায় চলে আসি। কুমিল্লাতে আসার পর থেকে, এই রুটিন আমি নিয়মিত ফলো করে যাচ্ছি। সপ্তাহের মাঝে ছুটি থাকলেও আমার এই রুটিনের হেরফের হয় নি।  স্বাধীনতা দিবসের এই ছুটিতে রুটিনের ব্যাতিক্রম ঘটালাম, রয়ে গেলাম কুমিল্লায়।  কুমিল্লা শহরের আশে পাশে বেশ কিছু জনপ্রিয় প্রত্নত্বাত্তিক নিদর্শন ও ঐতিহাসিক স্থান রয়েছে। ময়নামতি বুদ্ধ বিহার, রানীর মঠ, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সেমেটারি-বেশ পরিচিত নাম।

এই নিদর্শন গুলি ঢাকা-চট্টগ্রাম হাইওয়ে থেকে সহজে যাতায়াত করা যায়, তাই এসব স্থানে দর্শনার্থীদের ভীড় বেশী। কুমিল্লাতে এইসব পরিচিত জায়গার বাইরেও একটি গুরুত্বপুর্ন প্রত্নত্বাত্তিক স্থাপনা আছে। জগন্নাথপুরের জগন্নাথ মন্দির। শহরের পুর্বে বিবির বাজার সীমান্তবর্তী স্থল বন্দর যাওয়ার পথে এই মন্দিরের চুড়া দেখা যায়। এই ছুটিতে আমার গন্তব্য জগন্নাথপুর।



জগন্নাথপুর কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের পুর্ব সীমা ঘেষে একটি গ্রাম, এই গ্রামের উপর দিয়ে কুমিল্লা-বিবির বাজার সড়ক , বিবির বাজার সীমান্ত অবধি গেছে। জগন্নাথ মন্দিরটি শহর থেকে ৫ কিলোমিটার দূরে জগন্নাথপুরে অবস্থিত। এই মন্দিরটি হিন্দু দেবতা জগন্নাথের প্রতি উতসর্গকৃত, তাঁর নাম অনুসারে গ্রামের নাম জগন্নাথপুর। মন্দিরটি জগন্নাথপুর মন্দির, জগন্নাথ দেবের  মন্দির বা সংক্ষেপে "জগন্নাথ মন্দির" নামে সবচেয়ে বেশী পরিচিত।  "সপ্তরত্ন" মন্দির নামেও এর পরিচিতি আছে।   



জগন্নাথ মন্দির, কুমিল্লা তথা বাংলাদেশের অন্যতম পুরোনো মন্দির ও হিন্দু ধর্মীয় স্থাপনা। মুল মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন, ত্রিপুরার "শ্রী শ্রীযুক্ত মহারাজা" রাধা কিশোর মানিক্য  বাহাদুর। মন্দিরটির নির্মান কাজের সঠিক সময়কাল জানতে পারিনি। তবে মহারাজা রাধা কিশোর মানিক্য বাহাদুরের রাজত্ব্যের সময় ও মন্দিরের দেয়ালে অলংকৃত টেরাকোটার ডিজাইন দেখে ধারনা করা হয়, এটি ষোড়শ শতকের স্থাপত্যকর্ম। 

যখন আমি পৌছাই, তখন প্রায় দুপুর। দুপুরের আলোয় মন্দিরের সম্মুখভাগ

উইকিপিডিয়ার প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী এই মন্দিরে প্রতিষ্ঠিত জগন্নাথ, বলরাম, ও সুভদ্রার মুর্তি প্রকৃত পক্ষে ত্রিপুরার একটি মন্দিরে স্থাপিত ছিল। পরবর্তীতে মুর্তিগুলি এই মন্দিরে নিয়ে  আসা হয়। 

চারতলা বিশিষ্ট উপরে ত্রিকোনাকার এই মন্দিরের একটি অনন্য বৈশিষ্ট্য আছে, এটি বাংলাদেশের একমাত্র মন্দির যা, অষ্টভুজ আকৃতির ভিত্তির উপর তৈরী। প্রত্যেক তলার বাহিরের অংশ জ্যামিতিক ভাবে অষ্টভুজের আকৃতির অনুসরন করা হয়েছে। কথিত আছে, এই মন্দিরের নিচেও আরেকটি তোলা আছে, যা কালক্রমে মাটির নিচেদেবে গেছে- আমার কাছে এই কথাটির ভিত্তি বেশ দুর্বল- এটা গুজব।মন্দেরের পাশের দীঘিটি মন্দিরের মত পুরোনো। ব্রিটিশ লাইব্রী থেকে পাওয়া ১৮৬৩ সালের স্কেচেও এই পুকুরটি দেখানো হয়েছে।  মন্দিরের নিচ তলা ও প্রথম তলার টেরাকোটা গুলো সম্ভবত নস্ট হয়ে গেছে। কিছু লতা পাতাফুলের টেরাকোটা দ্বিতীয় তলা ও উপরের ত্রিকোনাকার টাওয়ারের গায়ে দেখা যায়। 

ব্রিটিশ লাইব্রেরী



মন্দির থেকে রথ যাত্রা হয়ে থাকে, মন্দিরের পুর্ব পাশের এক ছাউনীতে তিনটা রথের বাহন রয়েছে। এই পাথুরে স্থাপনাটি বাংলাদেশ প্রত্নত্বত্ত অধিদপ্তরের স্বীকৃত পুরাকীর্তি। বর্তমানে পুরনো মন্দিরের পাশে আন্তর্জাতিক কৃষ্ণ ভাবনামৃত সংঘের-ISKCON তত্তাবধায়নে নতুন মন্দির ও আশ্রম হয়েছে।





দেখতে সাধারন কিন্তু গুরুত্বপুর্ন এই স্থাপনাটি দেখতে যাওয়ার সবচেয়ে ভাল উপায় হচ্ছে, শহরের চকবাজার এসে ব্যাটারী ট্রাইক ভাড়া নিয়ে জগন্নাথপুর চলে যাওয়া।দল বেধে যাওয়া সবচেয়ে ভাল বুদ্ধি। ট্রাইকগুলিতে একসাথে ৫ জন ধরে, ১০-১৫ টাকা ভাড়া নেয়। 

২৬.০৩.২০১৩
__________

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন